ফেনীতে ‘ফণী’র ছোবলে বিধ্বস্ত শতাধিক ঘরবাড়ি

কয়েকদিন ধরে দেশে-বিদেশে ব্যাপকভাবে আলোচিত সস্মরণকালের ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় ফণীর আঘাতে ফেনীর ছাগলনাইয়ায় ব্যাপক ক্ষতিসাধিত হয়েছে। শতাধিক কাঁচা-ঘর বাড়ির চাল ও গাছপালার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

শুক্রবার রাতভর থেমে থেকে ধমকা হওয়া ও মাঝারি বৃষ্টিপাত হলেও শনিবার সকাল ৯টা ২০মিনিটে ছাগলনাইয়াসহ ফেনীও ওপর দিয়ে ঘূর্ণিঝড় ফণী আক্রমণ শুরু করে। প্রায় এক ঘন্টা স্থায়ী ঝড়ো বাতাসে উপজেলার ঘোপালের লাঙলমোড়া গ্রামের ফেনী নদীর চরে বসবাসকারী ২৪টির অধিক পরিবারের বসতঘর লন্ডভন্ড হয়ে যায়।

ওই গ্রামের আবুল হোসেন, মীর আহম্মেদ, কাসেম, তজুমিয়া, মিজান, মীর হোসেন বসত ঘর হারিয়ে খোলা আকাশের নিচে বাস করছেন বলে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুল হক মানিক জানিয়েছেন।

অপরদিকে, উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নে ঘূর্ণিঝড় ফনীর আঘাতে কাশিপুর গ্রামের আবুল হোসেন, আবু তাহের, নিজপানুয়ার মোঃ সিরাজ, রাব্বানীসহ অর্ধশতাধিক কাঁচা ও আধাপাকা ঘরের চাল উড়িয়ে নিয়ে গেছে। শুভপুরের দারোগাহ ও মহামায়া ইউনিয়নে ঘর ও গাছপালার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। পৌর শহরের পশ্চিম ছাগলনাইয়া, থানাপাড়া, বাঁশাড়া, উত্তর পানুয়া গ্রামে অনেকের ঘরের চাল কয়েশ গজ দূরে উড়ে গেছে।

রাস্তা-ঘাট ও বাড়িতে গাছ পড়ে অনেকের ক্ষতি হলেও কেউ হতাহতের খবর মিলেনি। শনিবারে ফণীর আঘাতে উপজেলায় বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের কয়েকটি খুঁটি ভেঙ্গে গেছে। ৩৫-৪০টি স্থানে বিদ্যুতের লাইনের তার ছিড়ে গেছে। শুক্রবার রাত থেকে শনিবার বিকেল সাড়ে ৩টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুরো উপজেলা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

এই দিন সন্ধ্যা নাগাদ ছাগলনাইয়া উপজেলার পৌরশহরে বিদ্যুৎ সরবহরাহের লক্ষ্যে লাইন মেরামতের কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন ফেনী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ছাগলনাইয়া জোনাল অফিসের ডিজিএম আবু বকর শিবলু।

এদিকে, দেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের এলাকার মানুষের মতো ফেনীর উপজেলাগুলোতে সাধারণ মানুষের মাঝে খুব বেশি আতঙ্ক ছিল না। তবে, সকাল ৯টার পর শুরু হওয়া ঘূর্ণিঝড় ফণীর ভয়াবহতা ও তান্ডব সর্বত্র ফণী আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

স্বাগতম

আপনাদের অনুপ্রেরণায় আমাদের পথচলা

অনলাইন নিউজ পোর্টাল সংবাদ সারদিন এর সাথে থাকার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

shares